1. hrhfbd01977993@gmail.com : admi2017 :
  2. editorr@crimenewsmedia24.com : CrimeNews Media24 : CrimeNews Media24
  3. editor@crimenewsmedia24.com : CrimeNews Media24 : CrimeNews Media24
বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:৩৩ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
"ফটো সাংবাদিক আবশ্যক" দেশের প্রতিটি থানা পর্যায়ে "ক্রাইম নিউজ মিডিয়া" সংবাদ সংস্থায় ১জন রিপোর্টার ও ১জন ফটো সাংবাদিক আবশ্যক। আগ্রহী প্রার্থীরা  যোগাযোগ করুন। ইমেইলঃ cnm24bd@gmail.com ০১৯১১৪০০০৯৫
সংবাদ শিরোনাম ::
থাইল্যান্ডে প্রধানমন্ত্রীকে লাল গালিচা সংবর্ধনা আসামী প্রকাশ্যে ঘোরাফেরা করলেও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা খুজে পায় না যুদ্ধ ব্যয়ের অর্থ জলবায়ুর প্রভাব মোকাবেলায় ব্যবহার হলে বিশ্ব রক্ষা পেত: প্রধানমন্ত্রী আসামী প্রকাশ্যে ঘোরাফেরা করলেও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা খুজে পায় না তাকে আরআরএফের সভাপতি হাবিবুল্লাহ মিজান, সম্পাদক নিশাত বিজয় দেশীয় খেলাকে সমান সুযোগ দিন: প্রধানমন্ত্রী স্বচ্ছতার সাথে সরকারি অনুদানের চলচ্চিত্র বাছাই হবে : তথ্য প্রতিমন্ত্রী প্রাণিসম্পদ সেবা সপ্তাহ ও প্রদর্শনী ২০২৪ এর উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবসে বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন প্রধানমন্ত্রীর মৃত্যু চিরন্তন সত্য — জিএম জামাল

৫ খাতে দুর্নীতির ৫৪ উৎস চিহ্নিত

  • আপডেট সময় সোমবার, ২১ মার্চ, ২০২২, ১১.৫৬ এএম
  • ১০৮ বার পড়া হয়েছে

দুর্নীতি দমন কমিশন আইন ২০০৪-এর ২৯(১) ধারা অনুযায়ী প্রতি বছর রাষ্ট্রপতির কাছে বার্ষিক প্রতিবেদন দাখিল করতে হয় দুর্নীতি দমন কমিশনকে (দুদক)। কোভিড ১৯-এর প্রাদুর্ভাব ও বিভিন্ন সীমাবদ্ধতায় গত বছর প্রতিবেদন দাখিল করেনি সংস্থাটি। তাই রোববার (২০ মার্চ) ২০২০ ও ২০২১ সালের বার্ষিক প্রতিবেদন একত্রে পেশ করেছে দুদক।

এবারের বার্ষিক প্রতিবেদনে দুদক সরকারের পাঁচটি খাতে দুর্নীতির উৎস ও তা প্রতিরোধে সুপারিশমালা দিয়েছে। রোববার সন্ধ্যায় বঙ্গভবনে দুদক চেয়ারম্যান মঈনউদ্দিন আবদুল্লাহর নেতৃত্বে পেশ করা বার্ষিক প্রতিবেদনে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরে ১০টি, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) ৬টি, সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে ১০টি, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের মৎস্য খাতে ১৩টি এবং প্রাণিসম্পদ খাতে দুর্নীতির ২৮টি উৎসের কথা উল্লেখ করা হয়েছে।

ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর

ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মোট ১০ উৎস চিহ্নিত করেছে দুদকের প্রাতিষ্ঠানিক টিম। দুর্নীতির উৎসগুলো হলো-

• ঔষধ প্রশাসন খাতে নতুন ফার্মাসিউটিক্যালস ইউনিট স্থাপন, ঔষধের কাঁচামাল এবং ঔষধ আমদানি ও প্রস্তুতকরণ, মোড়ক বা প্যাকেট প্রস্তুত ও ব্যবহারের প্রতিটি ক্ষেত্রে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের অনুমোদন নিতে হয়। যেখানে ঔষধ প্রশাসন খাতে জড়িত অসৎ কর্মচারীরা খরচের বিভিন্ন প্যাকেজ অফার গ্রহণ করে সেবা গ্রহিতার থেকে।

• ঔষধ ব্যবসায়ীদের লাইসেন্স নবায়ন ও মেয়াদোত্তীর্ণ বা নিম্নমানে ঔষধ বিক্রয়ে অর্থ লেনদেন হয়ে থাকে।

• ঔষধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান বিভিন্ন উপহার ও বিদেশ ভ্রমণের সুযোগসহ প্রভৃতির বিনিময়ে অসাধু ডাক্তারদেরকে প্রভাবিত করে নিম্নমানের অপ্রয়োজনীয় ঔষধ প্রেসক্রাইব করিয়ে নেয়।

• দেশে ঔষধ ক্রয় ও বিক্রয় পদ্ধতি সহজ বিধায় অনেক সময় ঔষধ বিক্রেতা নিজেই ডাক্তার সেজে রোগী দেখেন বা ক্রেতার কাছে নিম্নমানের ঔষধ বিক্রি করেন।

• হার্টের রিং বা স্ট্যান্ট, চোখের লেন্স/কন্ট্যাক্ট লেন্স, পেসমেকার ইত্যাদি জীবনরক্ষাকারী ও অত্যাবশ্যকীয় মেডিকেল ডিভাইস ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেটের কারণে বেশি দামে কিনতে বাধ্য হন সেবা গ্রহীতারা।

• নিম্নমানের ঔষধের লাইসেন্সপ্রাপ্তির বিষয়ে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ভূমিকা রাখেন।

• ঔষধের কাঁচামাল আমদানি করে কর্মকর্তাদের যোগসাজশে তা কালোবাজারে বিক্রি হয়।

• ঔষধের জন্য একটি উৎস থেকে কাঁচামাল ব্যবহারের নিয়ম থাকলেও তা মানা হয় না।

• ফার্মাসিউটিক্যাল্স কোম্পানিগুলোকে লাইসেন্স দেওয়ার পর নির্দিষ্ট সময় অন্তর অন্তর যথাযথভাবে তাদের ঔষধের গুণগতমান যাচাই করা হয় না।

• স্থানীয়ভাবে বাজারজাতকৃত বিভিন্ন ঔষধের গুণগতমান যথাযথ পরীক্ষা করা হয় না। এবং

কোন কোম্পানি কোন ঔষধ তৈরি করছে, কোনটার স্ট্যান্ডার্ড কেমন, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মান অনুযায়ী হচ্ছে কি না- এসব বিষয় চিহ্নিত করার ক্ষেত্রে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের সক্ষমতার যেমন ঘাটতি রয়েছে, তেমনি অনিয়ম-দুর্নীতি ও হয়রানির অন্যতম উৎস বলেও এগুলো চিহ্নিত। এসব দুর্নীতির উৎস প্রতিরোধে দুদক ৫টি সুপারিশ করেছে বার্ষিক প্রতিবেদনে।

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষে দুর্নীতির ৬টি উৎস চিহ্নিত করেছে দুদকের প্রাতিষ্ঠানিক টিম। উৎসগুলো হলো-

• যথাযথ পরীক্ষা ছাড়া এবং যানবাহন না দেখেই অবৈধ অর্থের বিনিময়ে যানবাহন রেজিস্ট্রেশন করে দেওয়া হয়। যেখানে বিপুল পরিমাণ রাজস্ব ফাঁকি হয়ে থাকে।

• যানবাহনের ফিটনেস সনদ দেওয়ায় সময় পরীক্ষা-নিরীক্ষা ছাড়াই অবৈধ অর্থের বিনিময়ে ফিটনেস সনদ দেওয়া হয়।

• ড্রাইভিং লাইসেন্সের আবেদনকারীদের পরীক্ষার তারিখ উদ্দেশ্যমূলকভাবে বিলম্বিত করা হয়, যাতে আবেদনকারীরা দালালের খপ্পরে পড়ে বা দালাল ধরতে বাধ্য হয়।

• একই কর্মচারীকে একাধিক ডেস্কে দায়িত্ব দিয়ে সেবা প্রদান কার্যক্রমে কৃত্রিম সংকট তৈরি করে দালালদের অবৈধ দৌরাত্ম্যের সুযোগ সৃষ্টি করা হয়।

• ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রদানের ক্ষেত্রে সকল তথ্য সংগ্রহের পরেও তা সরবরাহে দীর্ঘ সময় নেওয়া হয়। আবেদনকারীরা জরুরি প্রয়োজনে দালাল ধরতে বাধ্য হয়।

• যানবাহনের প্রকৃত মালিকের পরিচয় না জেনেই রেজিস্ট্রেশন সনদ প্রদান করা হয়। যেখানে কালো টাকার মালিকগণ বেনামিতে গাড়ি কেনার সুযোগ পাচ্ছে। আর বিআরটিএর এ সকল দুর্নীতি প্রতিরোধে দুদক তার বার্ষিক প্রতিবেদনে ৭টি সুপারিশ পেশ করেছে।

সাব-রেজিস্ট্রি অফিস

দুদকের চোখে সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে দুর্নীতির ১০টি উৎস চিহ্নিত করা হয়েছে। উৎসগুলো হলো-

• যে পরিমাণ দলিল রেজিস্ট্রি হয় তা বিদ্যমান নকলনবিশ দ্বারা প্রতিদিনের দলিল প্রতিদিনই কপি না হওয়ার কারণে মূল দলিল সরবরাহ করতে বিলম্ব হয় এবং সার্টিফায়েড কপি সরবরাহে ইচ্ছাকৃত জটিলতার সৃষ্টি করা হয়। যাতে সেবা পাওয়ার জন্য উৎকোচ দিতে বাধ্য হচ্ছেন সেবা গ্রহীতারা।

• দলিল রেজিস্ট্রেশনের সময় সরকারি রাজস্ব হিসাবে জমাকৃত পে-অর্ডার, ব্যাংক ড্রাফট, চেক ইত্যাদি সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের হিসাবে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে জমা হয় না। এতে এসব ব্যাংক ড্রাফট, পে-অর্ডার, চেকসমূহ সংশ্লিষ্ট দপ্তর হতে খোয়া যাচ্ছে এবং জালিয়াতির মাধ্যমে অর্থ আত্মসাতের সুযোগ সৃষ্টি হচ্ছে প্রতিনিয়ত।

• পে-অর্ডার, ব্যাংক ড্রাফট, চেক ইত্যাদি এন্ট্রি দেওয়ার জন্য রক্ষিত রেজিস্টারের সকল কলাম পূরণ করা হয় না।

• দলিল রেজিস্ট্রেশন হওয়ার পর বিবরণসহ নোটিশ সংশ্লিষ্ট এসিল্যান্ড অফিসে প্রেরণ করার কথা থাকলেও কৌশলে বিবরণ ছাড়াই তা প্রেরণ করা হয়।

• পে-অর্ডার, ব্যাংক ড্রাফট, চেক ইত্যাদি সময়মতো রাজস্ব খাতে জমা না হলে তা সংশ্লিষ্ট ইস্যুকারী ব্যাংকে দাবিদারবিহীন পড়ে থাকে এবং একটি সময় ব্যাংকের অসাধু কর্মকর্তা কর্তৃক তা আত্মসাতের সুযোগ সৃষ্টি হয়।

• দাতা-গ্রহীতার মধ্যে জমির প্রকৃত বিনিময়মূল্য বেশি হলেও তা দলিল লেখক ও সাব-রেজিস্ট্রারের সহায়তায় কম দেখিয়ে রেজিস্ট্রেশন করার কারণে প্রকৃত রেজিস্ট্রেশন ফি থেকে সরকার বঞ্চিত হচ্ছে।

• বিতর্কিত জমি রেজিস্ট্রেশন করে রেজিস্ট্রেশন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা-কর্মচারী অবৈধ সুযোগ-সুবিধা গ্রহণ করছেন।

• কোনো দলিল রেজিস্ট্রেশন শেষ হয়ে গেলে যদি সেটি জাল দলিল হিসেবে রেজিস্ট্রি হয় তবে দেওয়ানি আদালত ছাড়া ওই দলিল বাতিল করা জমির প্রকৃত মালিকের পক্ষে সম্ভব হয় না, যা একটি দীর্ঘমেয়াদি প্রক্রিয়া। এ সুযোগে প্রকৃত মালিক দীর্ঘমেয়াদি বিড়ম্বনায় পড়েন।

• নিয়োগ-বদলির ক্ষেত্রে ব্যাপক বাণিজ্যের জনশ্রুতি রয়েছে। আইন ও ম্যানুয়াল অনুযায়ী তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী বদলি, দলিল লেখক, নকলনবিশ নিয়োগের ক্ষমতা সংশ্লিষ্ট জেলা রেজিস্ট্রারের। কিন্তু বাস্তবে এ নিয়োগ ও বদলি আই.জি.আর-এর দপ্তর হতে করা হয়।

• নিয়োগ বহির্ভূত অনেক লোক রেজিস্ট্রেশন কমপ্লেক্সে কাজ করেন, যাদের উমেদার বলে। অধিকাংশ অবৈধ লেনদেন এদের মাধ্যমে হয়ে থাকে।

এরূপ দুর্নীতির উৎস বন্ধে ও দুর্নীতি প্রতিরোধে ১০টি সুপারিশ করেছে বার্ষিক প্রতিবেদনে।

এছাড়া বার্ষিক প্রতিবেদনে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ে দুর্নীতির ২৮টি উৎস চিহ্নিত করেছে দুদকের প্রাতিষ্ঠানিক টিম। যা প্রতিরোধে প্রায় একই পরিমাণ সুপারিশ করেছে দুদকের প্রাতিষ্ঠানিক টিম।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

জাতীয় ঈদগাহে সুষ্ঠুভাবে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত করার লক্ষে ৫ স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানিয়েছেন ডিএমপি কমিশনার হাবিবুর রহমান বিপিএম (বার), পিপিএম (বার)। এছাড়াও রাজধানীর প্রতিটি ঈদ জামাতকে ঘিরে আলাদা আলাদা নিরাপত্তা ব্যবস্থার কথাও জানিয়েছেন তিনি। আজ মঙ্গলবার জাতীয় ঈদগাহ ময়দানের নিরাপত্তা ব্যবস্থা পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা জানান ডিএমপি কমিশনার। ডিএমপি কমিশনার বলেন, রাজধানীর প্রধান ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হবে জাতীয় ঈদগাহ ময়দানে। জাতীয় ঈদগাহে মহামান্য রাষ্ট্রপতি, মাননীয় প্রধান বিচারপতি, মাননীয় বিচারপতিবৃন্দ, মন্ত্রী পরিষদের সদস্যবর্গ, ঢাকাস্থ মুসলিম দেশের কূটনৈতিকবৃন্দ এবং অন্যান্য গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ঈদ জামাত আদায় করবেন। প্রায় ৩৫ হাজার মুসল্লি একত্রে এই ঈদগাহ মাঠে নামাজ আদায় করতে পারবেন। গৃহীত নিরাপত্তা ব্যবস্থা সম্পর্কে তিনি বলেন, ঈদের প্রধান জামাতসহ রাজধানীর সকল মসজিদ ও ইদগাহে ঈদের জামাতকে ঘিরে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। ঈদগাহ ও আশপাশ এলাকা স্পেশাল ব্রাঞ্চ (এসবি) এর ইকুইপমেন্ট ও ডিএমপির ডগ স্কোয়াড দিয়ে সুইপিং করানো হবে। পুরো এলাকা সিসিটিভি ক্যামেরা দিয়ে পর্যবেক্ষণ করা হবে। এছাড়াও ড্রোন পেট্রোলিং ও ওয়াচ টাওয়ারের মাধ্যমে নিরাপত্তা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করা হবে। পর্যাপ্ত সংখ্যক ইউনিফর্মধারী পুলিশ সদস্যদের সমন্বয়ে জাতীয় ঈদগাহের চারপাশে বহির্বেষ্টনী ও আন্ত:বেষ্টনী গড়ে তোলা হবে। প্রবেশ গেটে মেটাল ডিটেক্টর ও আর্চওয়ের মাধ্যমে তল্লাশি করা হবে। ইউনিফর্ম পুলিশের পাশাপাশি ডিবি পুলিশ, এসবি ও অন্যান্য গোয়েন্দা সংস্থা সিভিল পোশাকে তাদের কার্যক্রম অব্যাহত রাখবে। যে কোনো পরিস্থিতি মোকাবেলায় সোয়াট টিম, বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিট স্ট্যান্ডবাই থাকবে। এছাড়াও দুর্ঘটনা এড়াতে ফায়ার সার্ভিস ও তাৎক্ষণিক চিকিৎসা সেবায় মেডিকেল টিম নিয়োজিত থাকবে। তিনি বলেন, প্রধান ঈদ জামাত ঘিরে দশটি স্থানে পার্কিং ব্যবস্থা করেছে ডিএমপির ট্রাফিক রমনা বিভাগ। ঈদ জামাত ঘিরে আটটি রাস্তা ডাইভারসন দেওয়া হবে, যাতে কোনোরকমের হয়রানি ছাড়া মুসল্লিরা আসতে পারেন। নারীদের জন্য নামাজের পৃথক ব্যবস্থা থাকবে, তাদেরকে নারী পুলিশ সদস্যরা তল্লাশি করবেন। তিনি আরো বলেন, এবার ঢাকায় ১৮৪টি ঈদগাহে ও ১ হাজার ৪৮৮ টি মসজিদে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে। প্রত্যেকটি ঈদ জামাতের জন্য আলাদা আলাদা নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে। একটি জামাতও নিরাপত্তা বলয়ের বাইরে থাকবে না। নাগরিকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, যারা ঈদের নামাজে অংশ নিতে আসবেন তারা আমাদের তল্লাশি কার্যক্রমে সাহায্য করবেন। কেউ দাহ্য বা ধারালো বস্তু নিয়ে আসবেন না। যে কোনো সমস্যা হলে পুলিশকে জানান। জামাত থেকে বের হওয়ার সময় ধৈর্যের সঙ্গে সুশৃঙ্খলভাবে বের হবেন। সাংবাদিকদেরে এক প্রশ্নের জবাবে ডিএমপি কমিশনার বলেন, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ এলাকায় পাহাড়ি সশস্ত্র সংগঠন কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্টের (কেএনএফ) কোনো তৎপরতার তথ্য নেই। পাশাপাশাপি কোন ধরনের জঙ্গি তৎপরতার তথ্যও নেই। তারপরও ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ সকল বিষয় বিবেচনায় রেখেই নিরাপত্তা পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। যানবাহনে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের বিষয়ে অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এ বিষয়ে বাস মালিক সমিতিসহ সকল স্টেকহোল্ডারদের আমাদের বৈঠক হয়েছে। তারা আমাদের নির্ধারিত ভাড়া আদায়েরর প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। রাজধানীর সকল যাত্রীবাহী বাস কাউন্টার ও স্টেশনগুলোতে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ তৎপর রয়েছে। কোন ধরনের সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এসময় অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (অ্যাডমিন) এ কে এম হাফিজ আক্তার বিপিএম-বার (অতিরিক্ত আইজিপি পদে পদোন্নতিপ্রাপ্ত); অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম অ্যান্ড অপারেশনস) ড. খঃ মহিদ উদ্দিন বিপিএম-বার (অতিরিক্ত আইজিপি পদে পদোন্নতিপ্রাপ্ত); অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (লজিস্টিকস, ফিন্যান্স এন্ড প্রকিউরমেন্ট) মহাঃ আশরাফুজ্জামান বিপিএম; অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) মোঃ মুনিবুর রহমান বিপিএম-সেবা; অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (সিটিটিসি) মোঃ আসাদুজ্জামান বিপিএম (বার); অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (গোয়েন্দা) মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ বিপিএম (বার), পিপিএম (বার); যুগ্ম পুলিশ কমিশনারগণ, উপ-পুলিশ কমিশনারগণ ও বিভিন্ন পদমর্যাদার কর্মকর্তাগণসহ এবং প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

themesbazar_crimenew87
© All rights reserved © 2015-2021
Site Customized Crimenewsmedia24.Com